কবর যিয়ারতের বিধান কি ? এবং আমরা কেন কবর যিয়ারত করি?

Administrator Member Since Oct 2016
Flag(0)
Oct 23, 2012 04:37 AM 2 Answers
Subscribe

1 Subscribers
Submit Answer
Please login to submit answer.

2 Answers
Sort By:
Best Answer
0
AnswersBD Administrator Feb 06, 2013 12:20 PM
Flag(0)

মহিলাদের কবরে যাওয়া নিষেধ। নিজের বাপ-মাদের কবরে যাওয়া যেতে পারে। এটাও প্রথমে নিষিদ্ধ ছিল। নামী ধর্মীয় ব্যাক্তিত্বদের কবর মাজারে পরিনত হয়। যেমন জনাব খাজা মইনুদ্দীন চিশতী। মক্কা,মদীনা ও বায়তুল মুকাদ্দাস ছাড়া কোথাও সরাসরি যাওয়া হারাম। আপনার কোন কাজ নাই। চিন্তা করলেন, আজমীর ঘুরে আসি। এটা হারাম। কিন্তু আপনার দিল্লীতে আসলেই কাজ আছে, তাহলে আজমীর যেতে পারবেন। ধন্যবাদ।

Sign in to Reply
Replying as Submit
Best Answer
0
AnswersBD Administrator Nov 16, 2012 10:06 AM
Flag(0)

৩৩। উত্তর : মহিলা ব্যতীত শুধু পুরুষের জন্য কবর যিয়ারত সাধারণত মুস্তাহাব।

কবর যিয়ারতের কিছু উপকারীতা ও কতিপয় আদব নিম্নে বিধৃত হল :

১। জিয়ারতকারীর জন্য কবর যিয়ারত উপদেশ ও নসীহত স্বরূপ। এর ফলে মৃত্যুর কথা স্বরণ হয়, যা সৎকর্মের জন্য সহায়ক।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন : “আমি তোমাদেরকে কবর যিয়ারত নিষেধ করেছিলাম, তবে এখন তোমরা যিয়ারত করতে পারো।” (মুসলিম)

মুসনাদে আহ্মাদ ও অন্য কিতাবে একটি বর্ণনায় এসেছে : “কবর যিয়ারত তোমাদেরকে পরকাল স্বরণ করিয়ে দেয়।”

২। আমরা কবরস্থানে গিয়ে মৃতদের জন্য এস্তেগফার করব, ক্ষমা চাইব। আল্লাহ্কে বাদ দিয়ে তাদের নিকট কোন প্রার্থনা কিংবা তাদের কোন দুআ কামনা করব না।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাহাবাদেরকে কবরস্থানে গিয়ে নিম্নের দোয়াটি পড়ার দীক্ষা দিয়েছেন :

” اَلسَّلاَمُ عَلَيْكُمْ أَهْلَ الدِّيَارِ مِنَ الْمُؤْمِنِيْنَ وَالْمُسْلِمِيْنَ ، وَإِنَّا إِنْ شَاءَ اللهُ بِكُمْ لَلاَحِقُوْنَ ، أَسْاَلُ اللهَ لَنَا وَلَكُمُ الْعَافِيَةَ ”

অর্থ “হে মু‘মিন ও মুসলিম কবরবাসীগণ তোমাদের প্রতি সালাম, ইন্শাআল্লাহ্ আমরাও তোমাদের সাথে অবশ্যই মিলিত হবো, আমি আল্লাহ্র নিকট আমাদের ও তোমাদের জন্য শান্তি কামনা করছি।” (মুসলিম)

৩। কবরের ওপর বসা ও তার দিক ফিরে নামায পড়া নিষেধ। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন : “কবরের ওপর তোমরা বসবে না এবং তার দিকে ফিরে নামায আদায় করবে না।” (মুসলিম)

৪। কবরস্থানে কোরআন মজীদ এমনকি সূরা ফাতেহাও পড়া যাবে না। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেন : “তোমরা তোমাদের ঘর-বাড়ীকে কবরস্থান বানিয়ে নিওনা, কেননা যে ঘরে সূরা বাকারা পড়া হয় শয়তান সে ঘর থেকে পলায়ন করে।” (মুসলিম)

উল্লেখিত হাদীস থেকে প্রমাণ হয় যে, কবরস্থান কোরআন তেলাওয়াতের স্থান নয়, কোরআন তেলাওয়াতের স্থান বাড়ী। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও তাঁর সাহাবা থেকে কোন প্রমাণ নেই যে, তাঁরা মৃতদের জন্য কোরআন পড়েছেন; হ্যাঁ, তাঁরা মৃতদের জন্য দুআ করেছেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন মৃত ব্যক্তির দাফন স¤পন্ন করতেন, তার নিকট দাঁড়িয়ে বলতেন : “তোমরা তোমাদের ভাইয়ের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা কর এবং তার সুদৃঢ় হওয়ার জন্য দুআ কর। যেহেতু এখন সে জিজ্ঞাসিত হবে।” (হাকেম)

৫। কবরে বা মাজারে পু®পমাল্য বা ফুল অর্পণ করা যাবে না। এ আমল রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও তাঁর সাহাবাগণ থেকে প্রমাণিত নয়, এটা খৃষ্টানদের কালচার। আমরা যদি উক্ত পুস্পমাল্যের খরচটা ফকীর-মিসকীনকে দেই তবে তাতে মৃত ব্যক্তি ও ফকীর-মিসকীন উভয়ে লাভবান হবে।

৬। কবর প্লাষ্টার, পেইন্ট ও উঁচু করা এবং কবরে নির্মাণ কার্য করা নিষেধ। হাদীসে বর্ণিত : “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  কবরে নির্মাণ কাজ ও প্লাষ্টার করতে নিষেধ করেছেন।” (মুসলিম)

৭। প্রিয় মুসলিম ভাই! মৃত ব্যক্তির নিকট দুআ চাওয়া ও তাদের নিকট সাহায্য প্রার্থনা করা থেকে বিরত থাকুন। মৃতরা সামর্থহীন, বরং এক আল্লাহ্কে ডাকুন, তিনি সর্ব শক্তিমান ও দুআ কবুল করেন। উপরুন্তু মৃত ব্যক্তিদের নিকট কিছু প্রার্থনা করা শিরকে আকবরের অন্তর্ভুক্ত।

 

 সূত্রঃ http://ipcblogger.net/ahakeem/?p=367

Sign in to Reply
Replying as Submit